ডিবেঞ্চার এবং ঋণের মধ্যে পার্থক্য

ঋণপত্রের বকেয়া ঋণ

যখন একটি সংস্থাকে তার সম্প্রসারণের জন্য বিপুল পরিমাণ অর্থের প্রয়োজন হয়, উদ্দেশ্যটির জন্য মূলধন বাড়াতে অনেক উপায় রয়েছে। এই আর্থিক সরঞ্জামগুলির মধ্যে একটি হল ডিবেঞ্চার বলা হয়। কোম্পানি কর্তৃক প্রদত্ত সার্টিফিকেটের আকর্ষণীয় হার অফারের জন্য সাবস্ক্রাইব করার জন্য এটি সাধারণ জনগণকে আহ্বান করার একটি উপায়। এই সার্টিফিকেটগুলিকে ডিবেঞ্চার বলা হয় এবং এই ধরনের ডিবেঞ্চারের গ্রাহককে কোনও সমতুল্য করার প্রয়োজন হয় না এমন সংস্থার একটি অসুরক্ষিত ঋণ। যদিও প্রযুক্তিগতভাবে এখনও জনসাধারণের কাছ থেকে একটি ধরনের ঋণ, এই ডিবেঞ্চারগুলি সাধারণ ঋণগুলি থেকে পৃথক যা ব্যাংকগুলি বা অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলির কাছ থেকে লাভ করে। এই নিবন্ধটি Debenture এবং ঋণ মধ্যে পার্থক্য সম্পর্কে কথা বলতে হবে।

ডিবেঞ্চার আসলেই একটি নোটের একটি নোট, একটি কোম্পানীর একটি শংসাপত্র যা সুদের হারের পরিবর্তে দীর্ঘমেয়াদী ঋণের জন্য কোম্পানিকে ঋণ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়। এই ডিবেঞ্চার কোম্পানির সীলমোহরটি বহন করে এবং সার্টিফিকেটে নির্ধারিত হারে সুদ প্রদানের বিধানের পাশাপাশি ডিবেঞ্চারের মেয়াদ শেষে নির্দিষ্ট তারিখের প্রধান অর্থের পুনঃপ্রতিষ্ঠানের জন্য চুক্তির বিশদ ধারণ করে। । ডিবেঞ্চারগুলি কোম্পানির দায়বদ্ধতা এবং কোম্পানির আর্থিক বিবৃতিগুলির মতই প্রতিফলিত হয়।

একটি কোম্পানিকে ডিবেঞ্চারের সাথে এটি ব্যবহার করে ব্যাংক ঋণ গ্রহণ করে এবং একসাথে তারা কোম্পানির ঋণ দায় গঠন করে। এই ঋণ যে কোম্পানির দ্বারা পরিশোধ করা প্রয়োজন। কোম্পানীর সাধারণ জনগণের দ্বারা প্রদত্ত ঋণ এবং ঋণের মধ্যে প্রধান পার্থক্য হচ্ছে, ঋণদাতাদের যে কোনও ঋণ পাওয়া যায় না এবং ঋণগ্রহীতার ডিবেঞ্চারের জন্য কোম্পানি কর্তৃক প্রদত্ত সার্টিফিকেট আকারে এই ঋণগুলি স্বীকার করে। আরেকটি উল্লেখযোগ্য পার্থক্য হল যে ঋণগুলি স্থানান্তরযোগ্য নয় তবে একজন ব্যক্তির অন্য ব্যক্তির নামে ডিবেঞ্চার স্থানান্তর করতে পারে তাই তারা হস্তান্তরযোগ্য।

সংক্ষেপে:

ঋণপত্রের বকেয়া ঋণ

• সাধারণ জনসাধারণের কাছ থেকে ঋণ গ্রহন করে একটি কোম্পানির দ্বারা ডিবেঞ্চার মূলধন হয়। পরিবর্তে, কোম্পানির প্রতিশ্রুত মূলধনটি নির্দিষ্ট তারিখের পরে ফেরত দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় এবং ঋণদাতাদের কাছে সুদের হার নির্দিষ্ট করার প্রতিশ্রুতি দেয়।

ঋণ না থাকলে ঋণপত্র হস্তান্তরযোগ্য হয়।

• ডিবেঞ্চারের কোনও সংস্থার কাছ থেকে কোনও ঋণ গ্রহীতা দরকার হয় না, তবে ঋণের সমষ্টিগত প্রয়োজন।